অর্থনীতি

সোমবার, ০১ মার্চ, ২০২১ (২০:৪৯)

ফেব্রুয়ারিতেও রেকর্ড রেমিট্যান্স ১৭৮ কোটি ডলার

ফেব্রুয়ারিতেও রেকর্ড রেমিট্যান্স ১৭৮ কোটি ডলার

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেও কষ্টার্জিত রেমিট্যান্স পাঠানো অব্যাহত রেখেছেন প্রবাসীরা। সদ্যসমাপ্ত ফেব্রুয়ারিতে তারা ১৭৮ কোটি মার্কিন ডলার (১ দশমিক ৭৮ বিলিয়ন) রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। বাংলাদেশি মুদ্রায় (প্রতি ডলার ৮৫ টাকা ধরে) যার পরিমাণ ১৫ হাজার ১৩৮ কোটি টাকার বেশি। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী, ফেব্রুয়ারিতে আসা রেমিট্যান্স আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ১৮ শতাংশ বা ৩২ কোটি ৮৪ লাখ ডলার বেশি। গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৪৫ কোটি ডলার।

খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সরকারের নগদ প্রণোদনা ও করোনায় বিদেশ ভ্রমণ নিয়ন্ত্রণের কারণে অপ্রাতিষ্ঠানিক খাত থেকে বৈধ চ্যানেলে রেমিট্যান্স বেশি এসেছে। এছাড়া মহামারিতে এক ধরনের অনিশ্চয়তার কারণে প্রবাসীরা জমানো টাকা দেশে পাঠিয়েছেন। এসব কারণে রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে। মজবুত হচ্ছে অর্থনীতির ভিত। এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, চলতি অর্থবছরের আট মাসে (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ১ হাজার ৬৬৮ কোটি ৭২ লাখ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় এক লাখ ৪২ হাজার কোটি টাকা)। রেমিট্যান্সের প্রবাহ চাঙ্গা থাকায় ইতিবাচক অবস্থায় রয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ। সবশেষ ২৪ ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ ৪৪.০২ বিলিয়ন বা চার হাজার ৪০২ কোটি ডলার ছাড়িয়েছে।

তথ্য বলছে, ফেব্রুয়ারির রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন পাঁচ বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৩৯ কোটি ৭৫ লাখ ডলার। ১৩৪ কোটি ৬৪ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছে বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে। বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ৬৬ লাখ মার্কিন ডলার। দুটি বিশেষায়িত ব্যাংকের মধ্যে একটিতে এসেছে তিন কোটি ডলার। ২০২১ সালের প্রথম মাস (জানুয়ারি) দেশে ১৯৬ কোটি ২৬ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। তার আগের মাস ডিসেম্বরে এসেছিল ২০৫ কোটি ডলার।

সর্বশেষ ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষে প্রবাসী বাংলাদেশিরা ১ হাজার ৮২০ কোটি ডলার বা ১৮ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। যা বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স আহরণ। এর আগে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে দেশে রেমিট্যান্স আহরণের রেকর্ড হয়। ওই সময় প্রবাসীরা ১ হাজার ৬৪২ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন। তারও আগে অর্থাৎ ২০১৪-১৫ অর্থবছরে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স এসেছিল। ওই সময় রেমিট্যান্স আসে ১ হাজার ৫৩১ কোটি ৬৯ লাখ মার্কিন ডলার। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে আসে ১ হাজার ৪৯৩ কোটি ১১ লাখ মার্কিন ডলার, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে প্রবাসীদের রেমিট্যান্স পাঠানোর পরিমাণ ছিল ১ হাজার ২৭৬ কোটি ৯৪ লাখ মার্কিন ডলার। ২০১৭-১৮ অর্থবছরের রেমিট্যান্স আসে ১ হাজার ৪৯৮ কোটি ডলার। যা তার আগের অর্থবছরের চেয়ে ১৭ দশমিক ৩ শতাংশ বেশি। / ভোকা

এছাড়াও রয়েছে

সয়াবিন ও পামওয়েলের ওপর ৪ শতাংশ অগ্রিম কর প্রত্যাহার

আজ থেকে ব্যাংকে লেনদেন আড়াই ঘণ্টা

বিশ্বব্যাংকের ২৫ কোটি ডলার ঋণ অনুমোদন

সুবর্ণজয়ন্তীতে আসছে ৫০ টাকার তিন ধরনের স্মারক নোট

হিলি স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি শুরু

আবারও কমলো স্বর্ণের দাম

কমলো স্বর্ণের দাম

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে নতুন মাইলফলক

আরও খবর

  • রাজশাহীতে বন্ধুর ছুরিকাঘাতে আনসার সদস্য নিহত

    রাজশাহীতে বন্ধুর ছুরিকাঘাতে আনসার সদস্য নিহত

  • তরুণ পন্থের কাছে অভিজ্ঞ ধোনির পরাজয়

    তরুণ পন্থের কাছে অভিজ্ঞ ধোনির পরাজয়

  • এমবাপের নৈপুণ্যে পিএসজির বড় জয়

    এমবাপের নৈপুণ্যে পিএসজির বড় জয়

  • যুদ্ধের হুমকির পর ইউক্রেন সীমান্তে ‘ইস্কান্দার’ ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন রাশিয়ার

    যুদ্ধের হুমকির পর ইউক্রেন সীমান্তে ‘ইস্কান্দার’ ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন রাশিয়ার

সর্বশেষ খবর

স্বামীর সঙ্গে তর্ক করে গৃহবধূর আত্মহত্যা

‘পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত দূরপাল্লার পরিবহন বন্ধ থাকবে’

বিকালে বিএনপির জরুরি সংবাদ সম্মেলন

চলমান লকডাউন সোম ও মঙ্গলবার, বুধবার থেকে সর্বাত্মক