রাজনীতি

শনিবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২০ (০৭:৪৬)

কৃষক লীগের সম্মেলনে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের হাতাহাতি, চেয়ার ছোড়াছুড়ি

কৃষক লীগের সম্মেলনে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের হাতাহাতি, চেয়ার ছোড়াছুড়ি

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় কৃষক লীগের সম্মেলনে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের হাতাহাতি ও চেয়ার ছোড়াছুড়ির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় জরুরি সভা ডেকে সাংগঠনিকভাবে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভবেন্দ্রনাথ বিশ্বাস।

শুক্রবার বিকালে মুহূর্তে উপজেলার হিরণ ইউনিয়ন পরিষদ ভবন চত্বরে হিরণ ইউনিয়ন কৃষক লীগের সম্মেলনে এ হাতাহাতি ও চেয়ার ছোড়াছুড়ির ঘটনা ঘটে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বিকাল ৪টায় হিরণ ইউনিয়ন কৃষক লীগের সম্মেলন শুরু হয়। সম্মেলন শুরুর কিছু সময় পরে পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি চৌধুরী সেলিম আহম্মেদ ছোটন বক্তব্য দেয়া শুরু করেন। বক্তব্যের মাঝখানে তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের কাছে উপজেলা, কলেজ ও পৌর ছাত্রলীগের কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে সম্মেলন দেয়ার দাবি জানান।

চৌধুরী সেলিম আহম্মেদ ছোটনের এই বক্তব্যের প্রতিবাদ করেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক মাইনুল ইসলাম রিমো। এ সময় দুই নেতার সমর্থকদের মাঝে হাতাহাতি ও চেয়ার ছোড়াছুড়ির ঘটনা ঘটে। সম্মেলনে উপস্থিত উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপে উভয় গ্রুপ শান্ত হয়।

এ ঘটনার পরে সম্মেলন সংক্ষিপ্ত করে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভবেন্দ্রনাথ বিশ্বাস হিরণ ইউনিয়ন কৃষক লীগের সভাপতি হিসেবে মো. ইউনুচ শেখ ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মো. রফিকুল ইসলামের নাম ঘোষণা করেন।

হিরণ ইউনিয়ন কৃষক লীগের সাবেক সভাপতি সামছুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভবেন্দ্রনাথ বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক আয়নাল হোসেন শেখ, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান বিশ্বাস, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম হুমায়ুন কবির, সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া দাড়িয়া, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান হাজরা, জেলা পরিষদ সদস্য মাজাহারুল আলম পান্নাসহ উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি চৌধুরী সেলিম আহম্মেদ ছোটন বলেন, কোটালীপাড়া উপজেলা যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ। আমি বক্তব্যে সিনিয়র নেতৃবৃন্দের কাছে এই মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি ভেঙ্গে সম্মেলন দেয়ার দাবি জানিয়েছিলাম। আমার বক্তব্যের মাঝখানে উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাইনুল ইসলাম রিমো বেআইনি ভাবে বাঁধা প্রদান করে। ও একটা বেয়াদব। আমি ওর বহিষ্কার দাবি করছি।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাইনুল ইসলাম রিমো বলেন, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি চৌধুরী সেলিম আহম্মেদ ছোটন অসাংগঠনিক বক্তব্য দিয়েছেন। বর্তমানে গোপালগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের কমিটি নেই। উপজেলা কমিটি ভাঙ্গার ক্ষমতা একমাত্র জেলা কমিটিই রাখে। চৌধুরী সেলিম আহম্মেদ ছোটন অসাংগঠনিকভাবে বক্তব্য দেয়ায় আমি তার প্রতিবাদ করেছি।

এ ব্যাপারে জানার জন্য উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলামের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভবেন্দ্রনাথ বিশ্বাস বলেন, ছাত্রলীগ যে ঘটনা ঘটিয়েছে তাহা অনাকাঙ্ক্ষিত। এ ব্যাপারে আমরা জরুরি সভা ডেকে তাদের বিরুদ্ধে দলীয়ভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। / যুগা

এছাড়াও রয়েছে

ওবায়দুল কাদেরের পরিবারকে ‘রাজাকার’ বলে দুঃখপ্রকাশ এমপি একরামের

ফিটনেসবিহীন গাড়ি ৪ লাখ ৮১ হাজার: কাদের

সরকার চসিক নির্বাচনে কোনো হস্তক্ষেপ করবে না: ওবায়দুল কাদের

'বিরোধী দলের কর্মসূচি দেখলেই আঁতকে উঠছে সরকার'

নেতাকর্মীদের সীমা অতিক্রম না করতে বললেন কাদের

অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে ঐক‌্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান

কোকোকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে: অভিযোগ ফখরুলের

মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে কেউ গৃহহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

আরও খবর

  • নির্বাচনের মধ্যেই চট্টগ্রামে ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে ভাই খুন

    নির্বাচনের মধ্যেই চট্টগ্রামে ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে ভাই খুন

  • লালখানবাজারে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষ

    লালখানবাজারে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষ

  • হোয়াইটওয়াশ হল আয়ারল্যান্ড

    হোয়াইটওয়াশ হল আয়ারল্যান্ড

  • চেলসির নতুন কোচ টুখেল

    চেলসির নতুন কোচ টুখেল

সর্বশেষ খবর

ওবায়দুল কাদেরের পরিবারকে ‘রাজাকার’ বলে দুঃখপ্রকাশ এমপি একরামের

এবার ক্রিকেটে ‘প্লেয়ার অব দা মান্থ’ পুরস্কার

ইফরান সেলিমকে কেন জামিন দেওয়া হবে না জানতে চেয়ে রুল

করোনার টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন