রাজনীতি

শুক্রবার, ০৯ মে, ২০১৪ (১০:২৬)

খন্দকার মাহবুবের আদালত অবমাননার আদেশ ২২ জুন

খন্দকার মাহবুব

বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান ও সুপ্রিমকোর্ট বারের সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ বিষয়ে আগামী ২২ জুন আদেশের জন্য তারিখ ঠিক করেছে আদালত।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এর চেয়ারম্যান বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বে ৩ সদস্যের বিচারিক প্যানেল বিষয়টির ওপর উভয়পক্ষের শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেয়। খন্দকার মাহবুব হোসেনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী তাজুল ইসলাম। এদিকে প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম শুনানি করেন।

খন্দকার মাহবুব হোসেনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ বিষয়ে কারণ দেখাতে গত বছরের ৬ অক্টোবর রুল জারি করে ট্রাইব্যুনাল। তার বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ বিষয়ে প্রসিকিউশনের আনা আবেদন গ্রহণ করে এ আদেশ দিয়েছিল ট্রাইব্যুনাল।

বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার রায় নিয়ে খন্দকার মাহবুব হোসেনের মন্তব্যকে কেন্দ্র করে আবেদনটি করা হয়। প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম ট্রাইব্যুনাল-১ এ আবেদনটি দাখিল করেন। আবেদনে খন্দকার মাহবুব হোসেনের বিরুদ্ধে কেনো আদালত অবমাননার অভিযোগ আনা হবে না? তা জানাতে নির্দেশনা চাওয়া হয়।

সাকা চৌধুরীকে মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় মৃত্যুদণ্ড দিয়ে গত বছর ১ অক্টোবর রায় ঘোষণা করে ট্রাইব্যুনাল-১। রায়ে বলা হয়েছে, সাকা চৌধুরীর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের মধ্যে ৯টি সন্দেহাতিতভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে প্রসিকিউশন।

রায়ের পর জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের ব্যানারে আয়োজিত এক সভায় খন্দকার মাহবুব হোসেন তার এক বক্তব্যে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারকে প্রহসনের বিচার এবং এ বিচারের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের বিচার করা হবে বলে মন্তব্য করেছেন।

প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম শুনানিতে বলেন, খন্দকার মাহবুব হোসেনের এ ধরনের বক্তব্যের উদ্দেশ্য হচ্ছে ট্রাইব্যুনালের কার্যক্রম এবং নিরপেক্ষ বিচার ব্যবস্থাকে বিতর্কিত ও প্রশ্নবিদ্ধ করা এবং এ বিচারের সঙ্গে জড়িতদের নিরাপত্তাকে ঝুঁকিপূর্ণ করা।

তার এ বক্তব্যে এক ধরনের হুমকি উল্লেখ করে প্রসিকিউটর মালুম বলেন, এ ধরনের বক্তব্যে সাক্ষীরা ট্রাইব্যুনালে সাক্ষী দিতে চাইবে না। বিচার নিয়ে এ ধরনের বক্তব্যের সুযোগ দেয়া হলে সবাই বক্তব্য দেয়া শুরু করবে। তাই এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার আবেদন জানান প্রসিকিউটর।

এদিকে আইনজীবী তাজুল ইসলাম বলেন, যে বক্তব্যের কারণে আদালত অবমাননার অভিযোগ আনা হয়েছে তাতে বিচারকদের সম্পর্কে কিছু বলা হয়নি।

মিথ্যা সাক্ষী, মিথ্যা তদন্ত দিয়ে কোন নির্দোষ ব্যক্তিকে যদি সাজা দেয়া হয় তাহলে ওই সাজা দেয়ার সঙ্গে যারা জড়িত তাদের বিচার করা হবে বলে খন্দকার মাহবুব বলেন। আদালত অবমাননার বিষয়টি আমলে না নিয়ে তা নিষ্পত্তি করার আবেদন করেন আইনজীবী তাজুল ইসলাম। (সূত্র: বাসস)

এছাড়াও রয়েছে

খালেদা জিয়ার জন্য রাতেই জরুরি মেডিকেল বোর্ড গঠন

বাসায় রেখেই খালেদা জিয়ার চিকিৎসা সম্ভব: চিকিৎসক

আজ দুপুরে বিএনপির সংবাদ সম্মেলন

খালেদা জিয়ার বাসায় ৯ জন করোনায় আক্রান্ত

খালেদা জিয়া করোনায় আক্রান্ত

বিকালে বিএনপির জরুরি সংবাদ সম্মেলন

বিএনপি লকডাউন নিয়ে অপপ্রচার করছে: ওবায়দুল কাদের

বিএনপি দরজা জানালা বন্ধ করে লিপ সার্ভিস দিচ্ছে: কাদের

আরও খবর

  • বৈশাখে গুগলের বিশেষ ডুডল

    বৈশাখে গুগলের বিশেষ ডুডল

  • কুষ্টিয়ায় অজ্ঞাত ব্যক্তির দগ্ধ মরদেহ উদ্ধার

    কুষ্টিয়ায় অজ্ঞাত ব্যক্তির দগ্ধ মরদেহ উদ্ধার

  • আবারও বিয়ে করলেন পুতুল

    আবারও বিয়ে করলেন পুতুল

  • তারাবিসহ প্রতি ওয়াক্ত নামাজে সর্বোচ্চ ২০ জন অংশ নিতে পারবেন

    তারাবিসহ প্রতি ওয়াক্ত নামাজে সর্বোচ্চ ২০ জন অংশ নিতে পারবেন

সর্বশেষ খবর

‘বিদেশি সৈন্য প্রত্যাহার না করলে শান্তি আলোচনায় বসবেনা তালেবানরা’

আমিরাতের কাছে এফ-৩৫ জঙ্গিবিমান বিক্রি করছে বাইডেন প্রশাসন

খালেদা জিয়ার জন্য রাতেই জরুরি মেডিকেল বোর্ড গঠন

করোনায় একদিনে সর্বোচ্চ ৯৬ জনের মৃত্যু