বিশেষ প্রতিবেদন

উপেক্ষিত বাংলা ভাষা: আন্দোলনের ৬৫ বছর

সোমবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭ (১৮:৩৯)
উপেক্ষিত-বাংলা-ভাষা-আন্দোলনের-৬৫-বছর

বাংলা ভাষা

মায়ের ভাষার অধিকার আদায়ের সংগ্রামের পর পেরিয়ে গেছে ৬৫ বছর। এ দীর্ঘ সময়ে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে ভাষার অধিকার, রাষ্ট্রভাষা হয়েছে বাংলা।

তবে সর্বস্তরে মাতৃভাষার ব্যবহার চালু হয়নি এখনও সাইনবোর্ড-বিলবোর্ড বাংলায় লেখার অনীহা এবং বাংলা বানানে ভুলের ছড়াছড়ি; সব মিলিয়ে এক নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি। এ নিয়ে আক্ষেপ ভাষা সংগ্রামীদের; তাদের মতে ভাষার জন্য সংগ্রাম শেষ হয়নি এখনো।

‘মোদের গরব মোদের আশা, আমরি বাংলা ভাষা’— রক্তঝরা ইতিহাসে অর্জিত হয়েছে যে ভাষার অধিকার, সেই মাতৃভাষা বাংলা নিশ্চিতভাবেই অনেক গর্বের; অনেক ভালোবাসার। তবে সেই গর্ব অনেকটাই ম্লান হয় যখন ভাষার অধিকার আদায়ের সংগ্রামের ৬৫ বছর পরও, সর্বস্তরে চালু হয় না মাতৃভাষা বাংলা।

সাইনবোর্ড-বিলবোর্ড বাংলায় লিখতে আগ্রহী না হওয়া এবং বাংলা বানানে ভুলের ছড়াছড়ি বড়ই দৃষ্টিকটু-বেমানান ভাষা সংগ্রামীদের কাছে। এসব কিছুকে একুশের চেতনার অবমাননা বলেই মনে করেন তারা।

মাতৃভাষা-রাষ্ট্রভাষা বাংলার ক্ষেত্রে এসব অসঙ্গতির কারণ আসলে কি.?

আদালতের নির্দেশনা থাকার পরও ব্যবসায়িক দৃষ্টিকোন থেকে সাইনবোর্ড বাংলার পরিবর্তে ইংরেজিতে লিখতেই সাচ্ছন্দ্যবোধ করেন অনেকে। যদিও জনসচেতনতা বাড়াতে চলছে কাজ।

বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান বলেন, এ অবস্থা থেকে উত্তরণে আরও বেশি আন্তরিক হতে হবে সাধারণ মানুষকে। প্রয়োজনে বাধ্য করতে হবে বাংলায় সাইনবোর্ড লিখতে। আর, বানান ভুল বন্ধে তাদের আছে বেশ কিছু পরামর্শ।

এছাড়াও সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, শুদ্ধ বাংলা ভাষার চর্চা, এর সঠিক প্রয়োগ ও ব্যবহার করলেই পুরোপুরিভাবে বাস্তবায়ন হবে একুশের চেতনা।

এই ক্যাটাগরীর আরও খবর

ঠাকুরপাড়ায় হিন্দু বাড়িগুলোতে হামলায় নেতৃত্ব দেয় জামাত-বিএনপি-জাপা

চলছে রাজনৈতিক দরকষাকষি, নির্বাচন করতে পারবে না জামাত

ভয়াল ১২ নভেম্বর: প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় কেড়ে নিয়েছিল ৫ লাখ মানুষের জীবন

শেষ ধাপে রয়েছে একুশ আগস্ট গ্রেনেড হামলা-মামলার বিচার প্রক্রিয়া

উচ্চ পর্যায়ে ক্ষমতার অভিলাসেরই পরিণতি ৭ নভেম্বর

অভ্যুত্থান সফল না হওয়ার জন্য মোশাররফের অদূরদর্শিতাই দায়ী