শিক্ষা-শিক্ষাঙ্গন

মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী, ২০১৮ (১৫:৩৫)

আশ্বাসে অনশন ভাঙলেন মাদ্রাসা শিক্ষকরা

আশ্বাসে অনশন ভাঙলেন মাদ্রাসা শিক্ষকরা

সরকারের পক্ষে থেকে মঙ্গলবার আশ্বাস পাওয়ার পর অনশন ভেঙে বাড়ি ফিরে গেছেন জাতীয়করণের দাবিতে থাকা স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকরা।

গত ১ জানুয়ারি থেকে রাজধানীর প্রেসক্লাবে সামনে আন্দোলন চালিয়ে আসছিলেন তারা।

পরে বেলা ২টার দিকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনের অনশনস্থলে আসেন শিক্ষাসচিব মো. আলমগীর (কারিগরী ও মাদ্রাসা)।

এ সময় তিনি দাবি মেনে নেয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়ে শিক্ষকদের অনশন ভাঙান।

শিক্ষাসচিব আলমগীর বলেন, গতকাল অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে আপনাদের দাবিদাওয়া নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর কথা হয়েছে।

শিক্ষাসচিবআরো বলেন, অর্থমন্ত্রী বলেছেন, দাবিদাওয়া সংক্রান্ত ও অন্যান্য তথ্য দেয়ার জন্য, শিক্ষা মন্ত্রণালয় এই সংক্রান্ত তথ্য প্রস্তুত করছে। দুই-একদিনের মধ্যে আপনাদের সকল তথ্য অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়ে দেয়া হবে। আপনাদের প্রতি সরকার সহানুভূতিশীল— অনশন ভেঙে যার যার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ফিরে যান। অনশন ভাঙার আহ্বান করছি।

শিক্ষকদের পক্ষ থেকে কর্মসূচি স্থগিতের কথা জানান স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির মহাসচিব সভাপতি কাজী রুহুল আমিন চৌধুরী।

তিনি বলেন, সরকারের সাথে আমরা একমত। আমরা আশা করি দাবি-দাওয়া মেনে নেবেন— এখানেই আমাদের কর্মসূচি স্থগিত করলাম। অনশন ভেঙে আমরা নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চলে যাব।

বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির ব্যানারে গত ১৫ দিন ধরে অবস্থান ও সাতদিন ধরে আমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করেন শিক্ষকরা।

এর আগে গত রোববার সচিবালয়ে কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী এবং শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের সঙ্গে আন্দোলনরত মাদ্রাসা শিক্ষক নেতাদের বৈঠক সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হয়। কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের শিক্ষামন্ত্রীর কক্ষে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে জাতীয়করণের দাবিতে আমরণ অনশনরত স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকদের দাবি-দাওয়া নিয়ে আলোচনা হয়।

নিবন্ধিত সব স্বতন্ত্র ইবতেদায়িী মাদ্রাসা জাতীয়করণের দাবিতে ১ জানুয়ারি থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি শুরু করেন মাদ্রাসার শিক্ষকরা। কিন্তু দাবি পূরণ না হওয়ায় ৯ জানুয়ারি থেকে আমরণ অনশন শুরু করেন তারা।

গত রোববার শিগগিরই নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিভুক্ত হবে –তবে সেখানে কয়েকটি শর্ত থাকবে জানান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

সবশেষ ২০১০ সালে এক হাজার ৬২৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করে সরকার। এরপর থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তি বন্ধ ছিল।

নতুন করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির দাবিতে শিক্ষক-কর্মচারীরা সম্প্রতি আন্দোলনে নামেন। পরে প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসে কর্মসূচি প্রত্যাহার করেন তারা। প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসের পর নতুন করে এমপিও দিতে উদ্যোগী হয় সরকার।

ওই কর্মসূচির পর তীব্র শীতের মধ্যে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে নিবন্ধন পাওয়া সব স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা জাতীয়করণের দাবিতে আমরণ অনশন কর্মসূচির পালন করেন মাদ্রাসা শিক্ষকরা।

প্রসঙ্গত, দেশে নিবন্ধিত স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা রয়েছে ১৮ হাজার ১৯৪টি—তবে চালু আছে ১০ হাজারের মতো, এসব মাদ্রাসায় শিক্ষক আছেন প্রায় ৫০ হাজার। তবে এর মধ্যে ১ হাজার ৫১৯টি মাদ্রাসার ৬ হাজার ৬৭৬ জন শিক্ষক সরকার থেকে ভাতা পান—এর মধ্যে প্রধান শিক্ষকরা পান মাসে আড়াই হাজার টাকা ও সহকারী শিক্ষকরা ২ হাজার ৩০০ টাকা।

 

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

রোববারের জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা স্থগিত, অনুষ্ঠিত হবে শুক্রবার

জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা শুরু

‘ঘ’ ইউনিটের উর্ত্তীণদের আবার পরীক্ষা নেবে ঢাবি

শাবিপ্রবির ভর্তির ফল প্রকাশ

ঢাবির ঘ ইউনিটের ফল প্রকাশ বিকালে

ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি ফল স্থগিত

৪০তম বিসিএসে থাকছে না কোটা

সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিল করে পরিপত্র প্রকাশ

হঠাৎ নয়াপল্টন রণক্ষেত্র

গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ আ.লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের

নতুন চোটে পড়েছেন তামিম

বিকেলে ইসিতে যাচ্ছে ঐক্যফ্রন্ট