আদালত

বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ (১৬:০৬)
প্রার্থিতা নিয়ে শুনানি

বিচারপতির প্রতি খালেদার আইনজীবীদের অনাস্থা

খালেদা জিয়া

তিন আসনে মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রিট আবেদনের শুনানিতে বিচারপতির প্রতি অনাস্থা জানিয়েছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে হাইকোর্টের বিচারপতি জেবিএম হাসানের নেতৃত্বাধীন একক বেঞ্চে এ শুনানি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।

তবে খালেদার জিয়ার আইনজীবীরা বিচারপতির প্রতি অনাস্থা জানিয়ে আদালত থেকে বেরিয়ে যান। পরে সোমবার পর্যন্ত আদালত মুলতবি ঘোষণা করা হয়।

এর ফলে খালেদা জিয়া নির্বাচন করতে পারবেন কি পারবেন না তা সোমবার পর্যন্ত ঝুলে থাকল।

আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী ও বদরুদ্দোজা বাদল।

গতকাল প্রধান বিচারপতি খালেদা জিয়ার তিনটি রিট শুনানির জন্য হাইকোর্ট বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি জেবিএম হাসানের নেতৃত্বে একক বেঞ্চ গঠন করে দেন।

মামলার সব নথি বিকালেই ওই বেঞ্চে পাঠানো হয়।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় শুনানির জন্য সময় নির্ধারণ করে হাইকোর্টে বেঞ্চ।

গতকালের তথ্য:

প্রার্থিতা ফিরে পেতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রিটের নথিপত্র হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে ফেরত পাঠানো হয়। বুধবার প্রধান বিচারপতির দপ্তর থেকে ওই নথিপত্র ফেরত পাঠানো হয়।

সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র ও স্পেশাল অফিসার মো. সাইফুর রহমান বলেন, বিস্তারিত আদেশ লিখতে নির্দেশ দিয়ে মামলার নথিপত্র সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে পাঠানো হয়েছে।

মঙ্গলবার তিন আসনে মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে করা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ৩টি রিটের ওপর বিভক্ত আদেশ দেয় হাইকোর্ট।

বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ খালেদা জিয়ার মনোনয়ন বাতিলে নির্বাচন কমিশনের আদেশ স্থগিত করে রুল জারি করে।

তবে বেঞ্চের অপর বিচারপতি মো. ইকবাল কবির এ আদেশের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেন।

আদেশের পর খালেদা জিয়ার আইনজীবী কায়সার কামাল সাংবাদিকদের বলেন, বেঞ্চের প্রিজাইডিং জজ খালেদা জিয়াকে নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ দিতে নির্দেশ দিয়েছেন তবে অপর বিচারপতি দ্বিমত পোষণ করেছেন।

এখন নিয়মানুসারে আবেদনগুলো প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠানো হবে। তিনি বিষয়গুলো নিষ্পত্তির জন্য অন্য বিচারপতির কাছে পাঠাবেন।

এর আগে শুনানি শেষে গত সোমবার বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ বিষয়ে আদেশের জন্য গতকাল দিন ঠিক ছিল।

আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এজে মোহাম্মদ আলী। অপরপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

শুনানির সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন- ইউরোপীয় ইউনিয়নের ‘ইলেকশন এক্সপার্ট মিশনের’ আইন বিশেষজ্ঞ ইরিনি মারিয়া গোনারি।

গত রোববার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় তার পক্ষে পৃথক তিনটি রিট করা হয়।

গত ৮ ডিসেম্বর প্রার্থিতা ফিরে পেতে খালেদা জিয়ার করা আপিল নামঞ্জুর করে দেয় নির্বাচন কমিশন (ইসি)। যা পরবর্তীতে হাইকোর্ট পযর্ন্ত গড়ায়।

গত ২ ডিসেম্বর যাচাই-বাছাইয়ের সময় খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা।

পরে তাদের এ সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে গত ৫ ডিসেম্বর নির্বাচন কমিশনে প্রার্থিতা ফিরে পেতে আপিল করেন খালেদার আইনজীবীরা।

তিনবারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ফেনী-১, বগুড়া-৬ ও ৭ আসনে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন।

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

আগামীকাল সুপ্রিমকোর্ট খুলছে

বর্ধমান বিস্ফোরণ: ৩ রোহিঙ্গা ঢাকায় বিস্ফোরক মামলায় দণ্ডিত

‘সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮’ কার্যকরে গেজেট প্রকাশে রুল জারি

মধুমতি মডেল টাউন: আগের রায় আপিলেও বহাল

যুক্তরাজ্যে অর্থপাচার মামলায় মামুনের ৭ বছরের কারাদণ্ড

মানবতাবিরোধী অপরাধ: নেত্রকোণার ২ জনের ফাঁসির রায়

মানবতাবিরোধী অপরাধ: নেত্রকোণার ২ জনের রায় বুধবার

যুক্তরাজ্যে তারেক-জোবাইদার ব্যাংক হিসাব জব্দের আদেশ

সর্বশেষ খবর

প্রকাশ্যে স্ত্রীর সামনেই যুবককে কুপিয়ে হত্যা

ভারত-ওয়েস্ট মুখোমুখি আজ

মাদাগাস্কারে স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে পদদলিত হয়ে নিহত ১৬

ঠাকুরগাঁওয়ে বজ্রপাতে হতাহত ৯ নারী