অপরাধ

বৃহস্পতিবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ (০৯:৩৩)

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের ঠিকানাই খুঁজে পাওয়া যায়নি

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা

যে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতি মামলা করা হয়েছে বাস্তবে সেটির সঠিক কোনো ঠিকানাই খুঁজে পাওয়া যায়নি।

প্রায় ২৫ বছর আগে বিদেশ থেকে এতিমদের জন্য আসা টাকা খালদা জিয়ার দুই ছেলে এবং স্বজনদের নামে ব্যাংকে এফডিআর করে রাখার প্রমাণ মিললেও ওই অর্থ এতিমদের জন্য ব্যয়ের কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

১৯৯১ সালে খালেদা জিয়া প্রথমবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বে আসার পর অনাথদের সহায়তা দেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর 'অরফানেজ ট্রাস্ট' নামে সোনালী ব্যাংকের রমনা শাখায় একটি হিসাব খোলা হয়।

হিসাবের স্বত্ত্বাধিকারী হিসেবে স্বাক্ষরকারী ছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। ওই অ্যাকাউন্টে ১৯৯১ সালের জুনে ইউনাইটেড সৌদি কমার্শিয়াল ব্যাংকের একটি ডিডি মারফত বাংলাদেশি টাকায় ৪ কোটি ৪৪ লাখ ৮১ হাজার টাকা জমা হয়। যা পরবর্তী দুই বছর ব্যাংকে অলস পড়ে থাকে।

১৯৯৩ সালে ঢাকা সেনানিবাসের ৬ মঈনুল রোড তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার বাসভবনের ঠিকানা ব্যবহার করে জিয়া এতিমখানা খোলা হয়। মঈনুল রোডের বাসার ঠিকানায় গড়ে ওঠা এতিম খানার কাগজপত্রে বরাদ্দ দিয়ে এর সদস্য খালেদা জিয়ার দুই ছেলে তারেক ও কোকোসহ পরিবারের ঘনিষ্ঠজনদের নিয়ে ট্রাস্ট গঠন করা হয়।

এরপর খালেদা জিয়া ৯ বছর ক্ষমতায় থাকলেও এতিমখানা দৃশ্যমান হয়নি। কিন্তু সেই টাকা ট্রাস্ট সদস্যদের ব্যক্তিগত তহবিলে সুদে আসলে বেড়েছে।

ওই একই সময় কাতারের রাজা তৎকালীর পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমানকেও অর্থ সহায়তা প্রদান করেন। সেই টাকায় বাগেরহাটে তার জমিতে জিয়া এতিমখানা নির্মাণ করা হয়। সেখানে বন্যা ও ঘূর্ণিঝড়সহ প্রাকৃতিক দুর্যোগের পাশাপাশি নানা সংকটে প্রধানমন্ত্রী বা রাষ্ট্রপতি বা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় দেশ বিদেশ থেকে ত্রাণ গ্রহণ করে থাকে।

কিন্তু প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার এতিমখানা তহবিল থেকে টাকা কি প্রক্রিয়ায় এতিমরা পাবে সেটির কোনো নীতিমালা খুঁজে পাওয়া যায়নি।

পাওয়া গেছে কেবল ব্যাংক হিসাব, টাকা জমা এবং তোলা আর টাকা বরাদ্দের প্রমাণ।

 

এছাড়াও রয়েছে

হাজারীবাগ-কারওয়ান বাজার বস্তিতে মাদকবিরোধী অভিযান, আটক শতাধিক

‘বন্দুকযুদ্ধে’ এগারো জেলায় ১১ জন নিহত

মাদকবিরোধী অভিযান: দশ জেলায় বন্দুকযুদ্ধে নিহত ১২

নওগাঁ-বরিশালে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় প্রতারণার অভিযোগে আটক ২০

আট জেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১০

ইয়াবা ব্যবসার সঙ্গে জড়িত নই, দাবি বদির

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১০

সুন্দরবনের দস্যু বাহিনীর ৫৭ সদস্যের আত্মসমর্পণ

ঢাকায় আসছেন থাই রাজকুমারী

হাজারীবাগ-কারওয়ান বাজার বস্তিতে মাদকবিরোধী অভিযান, আটক শতাধিক

মাদক ব্যবসা নির্মূল না পর্যন্ত অভিযান চলবে: কামাল

অপ্রয়োজনীয় সিজার থেকে বিরত থাকুন স্বাস্থ্যপ্রতিমন্ত্রী।