রবিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০১৭ (১৭:১৮)

পিলখানা হত্যাকাণ্ড: সাজার ব্যাপারে ৩ বিচারপতিই একমত

পিলখানা-হত্যাকাণ্ড-সাজার-ব্যাপারে-৩-বিচারপতিই-একমত

মাহবুবে আলম

পিলখানা হত্যা মামলায় কয় জন আসামির মৃত্যুদণ্ড বহাল থাকবে—কয়জন আসামির যাবজ্জীবন বহাল থাকবে এবং কতজন খালাস পাবেন—এসব ব্যাপারে তিন বিচারপতিই একমত হয়েছেন জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

রোববার নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান তিনি।

সকাল ১০টা ৫৫ মিনিটে বিচারপতি মো. শওকত হোসেন, বিচারপতি মো. আবু জাফর সিদ্দিকী ও বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের বিশেষ বেঞ্চে আপিলের রায় পড়া শুরু হয় আগামীকাল-সোমবার শেষ হবে।

পরে দুপুরে অ্যাটর্নি জেনারেল সংবাদ সম্মেলনে বলেন, অ্যাটর্নি জেনারেল সাংবাদিকদের বলেন, এ মামলায় একবছরেরও বেশি সময় ধরে শুনানি হয়েছে। আজ এ মামলার রায় পড়া চলছে সবোর্চ্চ আদালতে। পূর্ণাঙ্গ রায় যদি পড়া হয় তাহলে সময় লাগতে পারে।

যেসব আসামির দণ্ড বহাল থাকবে বা খালাস পাবেন, কী কারণে দণ্ড বহাল থাকল বা খালাস হলো তার পর্যবেক্ষণ ও যুক্তি আদালত তুলে ধরবেন জানান তিনি।

এ রায় কত পৃষ্ঠার তা পূর্ণাঙ্গ রায় না হলে বলা যাবে না বলে উল্লেখ করেন তিনি।

আসামিসংখ্যার দিক থেকে এ মামলা দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় মামলা। ২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি পিলখানায় ওই হত্যাযজ্ঞে ৫৭ সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জন প্রাণ হারান। এই হত্যা মামলায় ২০১৩ সালের ৫ নভেম্বর বিচারিক আদালত রায় ঘোষণা করে।

আজ -রোববার হাইকোর্টের রায়ের মধ্যদিয়ে মামলাটির বিচারপ্রক্রিয়ার দুটি ধাপ শেষ হতে যাচ্ছে।

বিডিআর জওয়ানদের ওই রক্তাক্ত বিদ্রোহের পর ৫৭টি বিদ্রোহের মামলার বিচার হয় বাহিনীর নিজস্ব আদালতে। আর হত্যাকাণ্ডের বিচার চলে পুরান য়াকার বকশীবাজারে আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত মহানগর দায়রা জজ আদালতের অস্থায়ী এজলাসে।

ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ মো. আখতারুজ্জামান ২০১৩ সালের ৫ নভেম্বর এ হত্যা মামলায় যে রায় ঘোষণা করেন।

ওই রায়ে বিদ্রোহের নেতৃত্ব দেয়া বিডিআরের উপ সহকারী পরিচালক তৌহিদুল আলমসহ বাহিনীর ১৫২ জওয়ান ও নন-কমিশন্ড কর্মকর্তার মৃত্যুদণ্ডের আদেশ আসে। পাশাপাশি তাদের প্রত্যেককে ১ লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়।

এ মামলার সাড়ে ৮০০ আসামির মধ্যে ওই রায়ের দিন পর্যন্ত জীবিত ছিলেন ৮৪৬ জন। তাদের মধ্যে ১৬১ জনকে দেয়া হয় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড।

পাশাপাশি অস্ত্র লুটের দায়ে তাদের আরও ১০ বছরের কারাদণ্ড এবং ২০ হাজার টাকা জারিমানা, অনাদায়ে আরও দুই বছরের কারাদণ্ড দেন বিচারক। এ ছাড়া ২৫৬ আসামিকে তিন থেকে ১০বছর পর্যন্ত বিভিন্ন মেয়াদের কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড দেয়া হয়। কারও কারও সাজার আদেশ হয় একাধিক ধারায়।

অপরাধে সংশ্লিষ্টতা প্রমাণিত না হওয়ায় রায়ে ২৭৭ জনকে বেকসুর খালাস দেয় বিচারিক আদালত।

রায়ের বিরুদ্ধে খালাসপ্রাপ্ত ২৭৭ জনের মধ্যে ৬৯ জন আসামির সর্বোচ্চ সাজা চেয়ে হাইকোর্টে ফৌজদারি আপিল ও ডেথ রেফারেন্স দায়ের করে রাষ্ট্রপক্ষ।

এদিকে, দণ্ডপ্রাপ্ত ৪১০ আসামির সাজা বাতিল চেয়ে আপিল করেন তাদের আইনজীবীরা।

এর মধ্যে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত কয়েক আসামির মৃত্যুদণ্ড ও কয়েকজনের সাজা বাড়াতে আরও দুটি আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ। কিন্তু দেরিতে আবেদন করায় গত ১৩ এপ্রিল আবেদন দুটিও বাতিল করে দেয় হাইকোর্ট। পরে এর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল করলে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ হাইকোর্টের আদেশই বহাল রাখে।

রক্তাক্ত ওই বিদ্রোহের প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিডিআর) এই নাম পরিবর্তন করা হয়। নাম বদলের পর এ বাহিনী এখন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) হিসেবে পরিচিত।

এই ক্যাটাগরীর আরও খবর

উত্তরা আধুনিক মেডিকেলে ভর্তি হতে পারবেন তরিকুল

ডিএনসিসির উপ-নির্বাচন স্থগিত করল হাইকোর্ট

আগামী ৬ মাসের মধ্যে ডাকসু নির্বাচনের নির্দেশ

ডিএনসিসি নির্বাচন স্থগিত চেয়ে রিট, আদেশ বুধবার

আরও খবর

দেশে রপ্তানি আয় বেড়েছে ৩ গুণ: শেখ হাসিনা

আইভী-শামীমের দ্বন্দ্ব অনাকাঙ্খিত: খন্দকার মোশাররফ

শামীম ওসমান-আইভিকে ডাকা হবে: ওবায়দুল

চট্টগ্রাম থেকে ফিরলেন প্রণব মুখার্জি

আন্তর্জাতিক নীতিমালা মেনে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের আহ্বান ইউএনএইচসিআরের

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন: চুক্তির বিষয়ে চারটি গভীর সংশয় প্রকাশ

দেশে রপ্তানি আয় বেড়েছে ৩ গুণ: শেখ হাসিনা

এক শ্রেণী অবৈধভাবে ক্ষমতায় যেতে চায়: শেখ হাসিনা

নবম ওয়েজবোর্ড গঠনের প্রক্রিয়া এগিয়েছে: তারানা

আইভী-শামীমের দ্বন্দ্ব অনাকাঙ্খিত: খন্দকার মোশাররফ